12.1 C
New York
বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২১
Home অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি যেন শিথিল না হয়

স্বাস্থ্যবিধি যেন শিথিল না হয়

স্বাস্থ্যবিধি যেন শিথিল না হয়

অভিভাবকদের জন্য ৮ নির্দেশনা।অভিভাবকেরা চান, স্কুলে যেন ঠিকমতো স্বাস্থ্যবিধি মানা হয়।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধানেরা বলছেন, তাঁরাও স্বাস্থ্যবিধির ওপর জোর দিচ্ছেন। সেটি মাথায় রেখেই প্রস্তুতি নিচ্ছেন। যদিও কোনো কোনো শিক্ষক বলছেন, ১৯ দফা নির্দেশনা পুরোপুরি বাস্তবায়নে চ্যালেঞ্জও কম নয়।

এদিকে জনস্বাস্থ্যবিদেরাও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্তকে সঠিক বলে মনে করছেন। তবে সেটা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার শর্তে। একজন জনস্বাস্থ্যবিদ পরামর্শ দিয়েছেন, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের কারও করোনার উপসর্গ দেখা দিলে সহজেই যাতে পরীক্ষা করানো যায়, সেই ব্যবস্থা করতে হবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর করোনার সংক্রমণ বাড়লে কী করা হবে, সে বিষয়ে সরকারেরও কিছু পরিকল্পনা রয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে ৫ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত আন্তমন্ত্রণালয় সভা শেষে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানান, কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে করোনার সংক্রমণ বেড়ে গেলে সেই প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে।

এদিকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক গতকাল শুক্রবার ডেন্টাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষা পরিদর্শন করতে গিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, সংক্রমণ কমেছে বলেই স্কুল-কলেজ খুলেছে। পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণের হার আবার আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে গেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ই নেবে। তিনি বলেন, ‘আমরাও সেভাবেই পরামর্শ দেব। আমরা চাইব না আমাদের ছেলেমেয়েরা সংক্রমিত হয়ে যাক।’

দেশে গত বছরের ৮ মার্চ করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ার পর ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়। প্রায় দেড় বছর পরে ৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষা–প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানানো হয়। সে অনুযায়ী আগামীকাল থেকে সশরীর ক্লাস শুরু
হবে। তবে আপাতত সশরীর ক্লাসের সংখ্যা সীমিতই থাকছে।

সরকারি সিদ্ধান্ত হলো, শুরুতে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থী এবং প্রাথমিকের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা প্রতিদিনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাবে। আর অন্য শ্রেণিগুলোর শিক্ষার্থীদের সপ্তাহে এক দিন ক্লাসে যেতে হবে। প্রাক্-প্রাথমিক স্তরে সশরীর ক্লাস আপাতত বন্ধ থাকবে।

একদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে খোলার প্রস্তুতি চলছে, অন্যদিকে অভিভাবকদের মধ্যে চলছে নানামুখী আলোচনা। বিগত কয়েক দিনে এই প্রতিবেদক বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেন। তাঁদের প্রায় সবাই স্কুল খোলার পক্ষে মত দিয়েছেন এবং তাঁরা সন্তানকে স্কুলে পাঠাতে চান। যদিও তাঁরা সব ধরনের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিশ্চিতের ওপর জোর দিয়েছেন।

ঢাকার ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ডারল্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর মা নাম প্রকাশে অনিচ্ছা জানিয়ে প্রথম আলোকে বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানলে খুলতে কোনো সমস্যা তিনি দেখছেন না।

রাজধানীর মগবাজারের ইস্পাহানি বালিকা বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয়ে গত সোমবার গিয়ে কয়েকজন অভিভাবক ও কয়েকজন শিক্ষার্থীকে পাওয়া যায়। আমিনুল ইসলাম নামের এক অভিভাবক প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর দুই সন্তান এই স্কুলে পড়ে। তিনিও মনে করেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুলে ক্লাস চললে কোনো সমস্যা হবে না।

সুনামগঞ্জ শহরের সৃজন বিদ্যাপীঠ নামের একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এক শিক্ষার্থীর বাবা এনাম আহমেদ বলেন, স্কুলে না যেতে যেতে তাঁর সন্তান স্কুলশিক্ষকের নামও ভুলে যাচ্ছে। সব বন্ধুর নাম সে মনে করতে পারে না। তাই স্কুল খোলা দরকার। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। স্কুলে যাতে অভিভাবকদের ভিড় না হয়, সেটাও খেয়াল রাখতে হবে।

গোপালগঞ্জের শহরের আঁখি খানমের মেয়ে ঈশিকা রহমান সেখানে বীণাপাণি সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ে পড়ে। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, সবকিছু খুলে গেছে। অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে মাঝে মাঝে তাঁর সন্তানকে স্কুলেও যেতে হচ্ছে। তাই তিনি স্কুল খোলার পক্ষে।

অবশ্য কোনো কোনো অভিভাবক সন্তানকে এখনই স্কুলে পাঠাতে রাজি নন। এদিকটি মাথায় রেখে সব স্কুলে এখনই সশরীর পাঠদান শুরু হচ্ছে না; বিশেষ করে ইংরেজি মাধ্যমের কোনো কোনো স্কুল দুই ধরনের ব্যবস্থা রেখেছে। মানে হলো, কোনো শিক্ষার্থীর অভিভাবক যদি সন্তানকে সশরীর ক্লাসে না পাঠান, সে ক্ষেত্রে অনলাইনেও ক্লাস করা যাবে। কোনো কোনো ইংরেজি মাধ্যমের স্কুল আরও কিছুদিন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে রেখে সশরীর ক্লাসের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

ঢাকার ইংরেজি মাধ্যম স্কুল স্কলাসটিকার মিরপুর শাখার প্রধান নুরুন নাহার মজুমদার প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা এ সপ্তাহে সশরীর ক্লাস নেওয়া শুরু করতে পারছেন না। সতর্কতামূলক ব্যবস্থা ও প্রস্তুতি নেওয়ার পরে তাঁরা এ সপ্তাহেই খোলার দিনক্ষণ জানিয়ে দিতে পারবেন।

অভিভাবকেরা সন্তানদের স্কুলে পাঠাতে প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছেন। দরজির দোকানে স্কুলের নির্দিষ্ট পোশাক বা ইউনিফর্ম তৈরির ফরমাশ বেড়েছে। আবার জুতার দোকানে ভিড় বেড়েছে। গতকাল বিকেলে ঢাকার মোহাম্মদপুরে একটি জুতার দোকানে দুই মেয়ের জন্য জুতা কিনতে গিয়েছিলেন সরকারি চাকরিজীবী সফিউল্লাহ শোভন। সঙ্গে তাঁর মেয়ে দুটিও ছিল।

সফিউল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর মেয়েদের স্কুলে সশরীর এবং অনলাইন ক্লাস—উভয় ব্যবস্থাই রাখা হয়েছে। তিনি মেয়েদের জিজ্ঞেস করেছিলেন, তারা স্কুলে যাবে, নাকি অনলাইনে ক্লাস করবে। তখন মেয়েরা তাঁকে বলেছে, স্কুলে গিয়েই ক্লাস করবে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) গত বৃহস্পতিবার নতুন এক নির্দেশনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে মানসম্পন্ন কার্যপ্রণালি বিধি (এসওপি) ঠিক করে দিয়েছে। যেখানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রধান, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক, পরিচালনা কমিটি এবং মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের জন্য মোট ৬৩টি নির্দেশনা রয়েছে। এগুলোর মধ্যে অভিভাবকদের আটটি বিষয় অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। এগুলো হলো সন্তানকে মাস্ক পরিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠানো, শিক্ষার্থীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠাতে উৎসাহ দেওয়া, নিজ স্বাস্থ্য সম্পর্কে (পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা) সচেতন করা, প্রতিষ্ঠানে সঠিক সময়ে পাঠানো ও বাসায় আসা নিশ্চিত করা, সন্তান অথবা পরিবারের কোনো সদস্য করোনায় আক্রান্ত হলে অবিলম্বে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানকে জানানো, প্রতিষ্ঠানের নির্দেশনা অনুসরণ করা এবং স্কুলে যাওয়ার সময় পানি ছাড়া অন্য কোনো খাবার সন্তানের কাছে না দেওয়া এবং বাইরের খাবার না খাওয়ার বিষয়ে সন্তানকে সচেতন করা।

প্রাথমিকে দিনে তিনটি ক্লাস

মাধ্যমিক পর্যায়ে দিনে কয়টি ক্লাস হবে, তা মাউশি আগেই জানিয়েছে। এবার প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর জানিয়েছে, প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে দিনে তিনটি করে ক্লাস হবে। এই সময়সূচি গতকাল সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠানো হয়।

সময়সূচি অনুযায়ী, পঞ্চম শ্রেণিতে প্রতিদিন তিনটি করে ছয় দিন ক্লাস হবে। শনিবার চতুর্থ শ্রেণি, রোববার তৃতীয় শ্রেণি, সোমবার দ্বিতীয় শ্রেণি ও মঙ্গলবার প্রথম শ্রেণির ক্লাস হবে। সময়সূচিতে বাংলা, ইংরেজি ও গণিতের ওপর বেশি জোর দেওয়া হয়েছে। এই সূচি আপাতত ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে।

‘সহজে করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা দরকার’

স্কুল খোলার পর শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক, স্কুলের কর্মচারী—কারও করোনা শনাক্ত হলে তাঁকে এবং তাঁর সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের আলাদা রাখার জন্য আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করা জরুরি বলে মনে করেন সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরামর্শক মুশতাক হোসেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত ঠিক আছে, তবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও কর্মচারীদের জন্য সহজে করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা করা দরকার; যাতে কারও উপসর্গ দেখা দিলে খুব সহজে শনাক্ত হয়।

RELATED ARTICLES

প্রধানমন্ত্রী টিকা- রোহিঙ্গা ও জলবায়ু ইস্যু তুলে ধরবেন

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে তাঁর ভাষণে সারা বিশ্বে করোনাভাইরাসের টিকা বিতরণে সমতা, জলবায়ু পরিবর্তন এবং...

সন্তান পরিচয়ে বৃদ্ধাকে হোটেলে ফেলে রেখে গেল -ছেলে

‘আমার মা এখানে থাক, ওষুধ কিনে এনে নিয়ে যাচ্ছি’। ছেলে পরিচয়ে খাবার হোটেলে অজ্ঞান এক নারীকে বসিয়ে রেখে এভাবেই চলে যান ছেলে পরিচয়দানকারী এক...

বউ-শাশুড়ির নতুন মাইলফলক

বৈশাখী টিভির প্রচার চলতি ধারাবাহিক নাটক ‘বউ-শাশুড়ি’ নতুন এক মাইলফলকে উন্নীত হচ্ছে  ১৮ সেপ্টেম্বর। এ দিন নাটকটির  ২৫০তম পর্ব প্রচার হবে। নাটকটি সপ্তাহে তিন দিন...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

প্রধানমন্ত্রী টিকা- রোহিঙ্গা ও জলবায়ু ইস্যু তুলে ধরবেন

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে তাঁর ভাষণে সারা বিশ্বে করোনাভাইরাসের টিকা বিতরণে সমতা, জলবায়ু পরিবর্তন এবং...

সন্তান পরিচয়ে বৃদ্ধাকে হোটেলে ফেলে রেখে গেল -ছেলে

‘আমার মা এখানে থাক, ওষুধ কিনে এনে নিয়ে যাচ্ছি’। ছেলে পরিচয়ে খাবার হোটেলে অজ্ঞান এক নারীকে বসিয়ে রেখে এভাবেই চলে যান ছেলে পরিচয়দানকারী এক...

বউ-শাশুড়ির নতুন মাইলফলক

বৈশাখী টিভির প্রচার চলতি ধারাবাহিক নাটক ‘বউ-শাশুড়ি’ নতুন এক মাইলফলকে উন্নীত হচ্ছে  ১৮ সেপ্টেম্বর। এ দিন নাটকটির  ২৫০তম পর্ব প্রচার হবে। নাটকটি সপ্তাহে তিন দিন...

আদালতের প্রতি সরকারের কোনোরূপ হস্তক্ষেপ নেই- ওবায়দুল কাদের

রাজনৈতিক উদ্দেশ্যমূলক মামলায় সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়নি জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশের আইন আদালতের প্রতি...

Recent Comments